বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণ দিবসে  বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের বিভিন্ন কর্মসূচি পালন

7
বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণ দিবসে  বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের বিভিন্ন কর্মসূচি পালন
বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ভাষণ দিবসে  বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের বিভিন্ন কর্মসূচি পালন
জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঐতিহাসিক ৭মার্চ ভাষণ দিবস উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি লায়ন মো. গনি মিয়া বাবুল-এর নেতৃত্বে ৭ মার্চ শনিবার সকালে ৩২ ধানমন্ডিস্থ বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ, শ্রদ্ধা নিবেদন, ফাতেহা পাঠ ও বিশেষ দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হয়। এরপর বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘর প্রাঙ্গণে ‘বঙ্গবন্ধুর ৭ মার্চের ভাষণ ও বিশ্বজুড়ে বঙ্গবন্ধু’ শীর্ষক আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত হয়। বঙ্গবন্ধু গবেষণা পরিষদের কেন্দ্রীয় সভাপতি লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সংসদ সদস্য বেগম শামসুন নাহার ভূইয়া। আলোচনাসভায় আরো বক্তব্য রাখেন, আওয়ামী লীগ নেতা এম এ করিম, সংগঠনের ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক বীরমুক্তিযোদ্ধা মোঃ নুরুল ইসলাম তালুকদার, নির্বাহী সদস্য মোঃ মাসুদ আলম, সদস্য কবি খাদেমুল ইসলাম, মোঃ আনারুল হক, শেখ মোঃ নাসির উদ্দিন, ড. জাহিদুল ইসলাম জাহিদ, বাংলাদেশ স্বাধীনতা পার্টির চেয়ারম্যান মোঃ মিজানুর রহমান মিজু, মোঃ আনোয়ার হোসেন প্রমুখ।
প্রধান অতিথির বক্তব্যে সংসদ সদস্য বেগম শামসুন নাহার ভূইয়া বলেন, ৭ মার্চের ভাষণ বাঙালি জাতির এক অমূল্য সম্পদ। এই ভাষণ আমাদের মুক্তিযুদ্ধে শক্তি ও সাহস যুগিয়েছে।
সভাপতির বক্তব্যে লায়ন মোঃ গনি মিয়া বাবুল বলেন, ৭ মার্চের ভাষণই ছিল মূলত বাংলাদেশের স্বাধীনতার ঘোষণা। স্বাধীনতার মূল ভিত্তি হচ্ছে ৭ মার্চের ভাষণ। এই ভাষণে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা অর্জনের সঠিক দিক নির্দেশনা ছিল। এই ভাষণ আমাদের শক্তি ও প্রেরণার উৎস। এই ভাষণকে পাঠ্যপুস্তকে অন্তর্ভূক্ত করা প্রয়োজন। তিনি ৭ মার্চকে জাতীয় ঐতিহাসিক ভাষণ দিবস হিসেবে ঘোষণা করে রাষ্ট্রীয় মর্যাদায় পালনের দাবি জানান।