চবিতে মধ্যরাতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত অর্ধশাতাধিক

6
চবিতে মধ্যরাতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত অর্ধশাতাধিক
চবিতে মধ্যরাতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষ, আহত অর্ধশাতাধিক

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে (চবি) মধ্যরাতে ছাত্রলীগের দুই গ্রুপের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে শাখা ছাত্রলীগের অর্ধশাতাধিক নেতা-কর্মী আহত হয়েছে বলে জানা যায়। ভাঙচুর করা হয়েছে হলের বেশি কিছু কক্ষ। ৭ জনকে আটক করেছে পুলিশ।

বৃহস্পতিবার দিবাগত সাড়ে ৩টার দিকে এফ রহমান হল থেকে অর্ধশতাধিক ছাত্রলীগ কর্মীকে আটক করা হয়। আটককৃতদের হাটহাজারী থানায় নিয়ে যাওয়া হয়েছে। পরবর্তীতে যাচাই বাছাই করে ৫০ জনকে ছেড়ে দেয়া হয়।

আটককৃতরা হলেন সিক্সটি নাইন গ্রুপের রসায়ন বিভাগের ১৪-১৫ শিক্ষাবর্ষের গোলাম শাহরিয়ার, ইসলামের ইতিহাস বিভাগের ১৫-১৬ শিক্ষাবর্ষের জোবায়ের আহমেদ নাদিম, উদ্ভিদবিদ্যা বিভাগের একই শিক্ষাবর্ষের মাশরুর অনিক, পরিসংখ্যান বিভাগের ১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের আকিব জাবেদ, ১৮-১৯ শিক্ষাবর্ষের রুম্মান, হায়দার।
এছাড়াও বিজয় গ্রুপের ১৬-১৭ শিক্ষাবর্ষের জিন্নাত মজুমদার ও কনকর্ড গ্রুপের জিসান।

জানা যায়, আজ বৃহস্পতিবার মধ্যরাত পূর্বের ঘটনার জের ধরে এফ রহমান হলে বিজয় গ্রুপের ওপর আক্রমণ করে নাছির গ্রুপ।

এসময় হলে ব্যাপক ভাংচুর চালানো হয়। বৈদ্যুতিক বাতি ভেঙে ফেলা হয়। এক পর্যায়ে ৬টি ককটেলের বিস্ফোরণ ঘটে। এসময় দুই গ্রুপের মধ্যে তুমুল সংঘর্ষ হয়। এতে উভয় গ্রুপের অর্ধ শতাধিক কর্মী আহত হয়। পরে বিজয় গ্রুপকে বিতাড়িত করে এফ রহমান হল দখলে নেয় নাছির গ্রুপ।

এ বিষয়ে বিজয় গ্রুপের নেতা ও সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক মোহাম্মদ ইলিয়াস বলেন, মধ্যরাতে শিবির স্টাইলে ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল টিপুর নেতৃত্বে এ নৃশংস হামলা হয়েছে। আমাদের অর্ধশতাধিক নেতাকর্মী আহত হয়েছে।

এদিকে চবি ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক ইকবাল হোসেন টিপু বলেন, সন্ধ্যায় তিন হল থেকে বিজয়ের কর্মীরা আমাদের কর্মীদের বের করে দেয়। প্রশাসনকে বারবার অনুরোধ করলেও মধ্যরাতেও তাদের হলে ওঠার কোনো ব্যবস্থা করে দেয়নি। রাতে তারা দুই হলে উঠতে গেলে হামলা চালায় বিজয়ের কর্মীরা।